ঢাকাসোমবার , ৫ জুলাই ২০২১
  • অন্যান্য

আধুনিক পদ্ধতিতে পাবদা মাছের পোনা মজুদ ও খাদ্য ব্যবস্থাপনা

admin
জুলাই ৫, ২০২১ ৯:১৪ পূর্বাহ্ন । ১৩১ জন
Link Copied!
agrilive24.com অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি


আধুনিক পদ্ধতিতে পাবদা মাছের পোনা মজুদ ও খাদ্য ব্যবস্থাপনা মৎস্য চাষিরা অনেকেই জানেন। বর্তমান সময়ে আমাদের দেশের অনেক মাছ চাষিরাই পাবদা মাছের চাষ করছেন। এই মাছের চাষ বেশ লাভজনক। আজকের এ লেখায় আমরা জানবো আধুনিক পদ্ধতিতে পাবদা মাছের পোনা মজুদ ও খাদ্য ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে-

আধুনিক পদ্ধতিতে পাবদা মাছের পোনা মজুদ ও খাদ্য ব্যবস্থাপনাঃ


পোনা মজুদঃ


১।  পুকুরে পোনা ছাড়ার পূর্বে পরিবহনকৃত পোনা পুকুরের পানির তাপমাত্রার সাথে খাপ খাইয়ে নিতে হবে। এর জন্য ১০ লিটার পানি ও ১ চামচ পটাসিয়াম পারম্যাংগানেট অথবা ১০০ গ্রাম লবণ মিশিয়ে দ্রবণ তৈরি করতে হবে। এরপর তাতে ১-২ মিনিট গোসল করিয়ে পোনা জীবাণুমুক্ত করতে হবে।

২। সার প্রয়োগের ৪ দিন পর পানির রং সবুজ বা বাদামি হলেই পুকুরে পোনা মজুদ করতে হবে। যদি সম্ভব হয় পোনা ছাড়ার সময় থেকে ৫-৬ ঘন্টা পুকুরে হালকা পানির প্রবাহ রাখতে হবে।

৩। একক চাষের ক্ষেত্রে শতাংশ প্রতি ৩-৪ গ্রাম ওজনের সুস্থ্য-সবল ২০০-২৫০টি পোনা মজুদ করা যেতে পারে।

৪। মিশ্র চাষের ক্ষেত্রে প্রতি শতাংশে ২ থেকে ৩ ইঞ্চি সাইজের ৫০টি পাবদা, ১০০টি শিং এবং ৪ থেকে ৫ ইঞ্চি সাইজের ৫টি কাতলা , ১০টি রুই , ১০টি মৃগেল, ২টি সিলবার কার্প ও ২টি গ্রাস কার্পের সুস্থ পোনা মজুদ করতে হবে।

৫। তেলাপিয়ার সাথে পাবদা মাছ ভাল হয়ে থাকে এ কারণেই যে তেলাপিয়ার অবাঞ্চিত বাচ্চা পাবদা মাছ খেয়ে তাড়াতাড়ি বড় হয়।

খাদ্য ব্যবস্থাপনাঃ


১। ৩০% ফিস মিল, ৩০% সরিষার খৈল, ৩০% অটোকুড়া, ১০% ভূষি ও ভিটামিন প্রিমিক্স সহকারে সম্পূরক খাবার তৈরি করা যায় অথবা বাজারের কৈ মাছের ফিড খাওয়ালেও চলবে।

২। এরা সাধারণত রাতে খেতে পছন্দ করে। তাই উপরোল্লিখিত খাবারটি রাতে ২ বার প্রয়োগ করা যেতে পারে। মিশ্র চাষের ক্ষেত্রে অন্যান্য মাছের জন্য স্বাভাবিক নিয়মে খাবার দিতে হবে।

৩।  পোনা মজুদের পরের দিন থেকে মাছকে তার দেহ ওজনের ১২ ভাগ থেকে আরম্ভ করে দৈনিক খাবার দিয়ে যেতে হবে।

৪। প্রতি ১৫ দিন অন্তর খাদ্য প্রয়োগের হার ১% করে কমাতে হবে। পাবদা মাছের ওজন ৩০ গ্রামের উর্ধ্বে উঠলে খাদ্য প্রয়োগের পরিমাণ হবে তার দেহ ওজনের শতকরা ৫ ভাগ।


আরও পড়ুনঃ কৈ মাছ চাষে রোগ দমন ও পরিচর্যা


মৎস্য প্রতিবেদন / আধুনিক কৃষি খামার

Credit: Source link