ঢাকাবুধবার , ৩০ জুন ২০২১
  • অন্যান্য

উচ্চফলনশীল বারি কলা-১ এর চাষ পদ্ধতি

admin
জুন ৩০, ২০২১ ৭:২৫ পূর্বাহ্ন । ৬২ জন
Link Copied!
agrilive24.com অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি


বাংলাদেশে কলা চাষের জন্য সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো প্রায় সব মাটিতে এটি চাষ করা যায়। সব মৌসুমই উপযোগ্য। এমনকি পরিত্যক্ত জমিতেও কলা চাষ করে লাভবান হওয়া সম্ভব। দেশের চাহিদা মিটিয়ে কলা বিভিন্ন দেশে রফতানি করে চাষিরা বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছে। ফলে অর্থনৈতিক সচ্ছলতাও এসেছে তাদের জীবনে। আসুন জেনে নেয়া যাক বারি উদ্ভাবিত উচ্চফলনশীল উচ্চফলনশীল বারি কলা-১ এর চাষ পদ্ধতি সম্পর্কে-

জাত নির্বাচন


বারি কলা-১ জাতের কলা দেখতে উজ্জ্বল হলুদ রঙের, খেতে মিষ্টি। এ জাতের ফলন একটু বেশিই হয়। বারি কলা-২ জাতের কলা কাঁচা হিসেবে ব্যবহার করা হয়। এ জাতের আকার মাঝারি ও রং গাঢ় সবুজ প্রকৃতির। এর ফলন বারি কলা-১ জাতের থেকে একটু কম। বারি কলা-৩ জাতটিও মাঝারি আকারের। এ জাতের কলা পাকা হয়। সম্পূর্ণ বীজছাড়া। কলার শাঁস মিষ্টি ও আঠালো। এর গড় ফলন বারি কলা-২ জাতের মতোই।

মাটি ও জলবায়ু


প্রায় সব ধরনের মাটিতে কলার চাষ করা যায়। তবে পর্যাপ্ত রস আছে এমন মাটিতে কলা চাষ করা উত্তম। এছাড়া সুনিষ্কাশিত দো-আঁশ ও বেলে দো-আঁশ মাটিও নির্বাচন করা যেতে পারে। নিচু জমি হলেও সমস্যা নেই। খেয়াল রাখতে হবে জমিটি যেন পর্যাপ্ত আলো-বাতাসপূর্ণ হয়। শীতকাল ও আর্দ্রতাযুক্ত জলবায়ুতে কলাগাছের বৃদ্ধি ভালো হয়।

চারা নির্বাচন


কলার চারা দুই রকমের অসি চারা ও পানি চারা। অসি চারার পাতা চিকন, গোড়ার দিকে মোটা ও গোলাকার। পানির চারার পাতা চওড়া, কাণ্ড চিকন ও দুর্বল। তবে চাষের জন্য অসি চারা উত্তম।

চারা রোপণ


কলার চারা সাধারণত বছরে তিন মৌসুমে রোপণ করা উত্তম। প্রথম মৌসুম মধ্য জানুয়ারি থেকে মধ্য মার্চ। দ্বিতীয় মৌসুম মধ্য মার্চ থেকে মধ্য মে। তৃতীয় মৌসুম মধ্য সেপ্টেম্বর থেকে মধ্য নভেম্বর। কলা চাষাবাদ করতে সাত-আটবার চাষ দিয়ে জমি ভালোভাবে তৈরি করে নিতে হয়। তারপর জৈবসার বিঘা প্রতি হিসেবে প্রয়োগ করতে হয়। অতপর ২২ মিটার দূরত্বে গর্ত খনন করতে হবে। প্রতিটি গর্তে ছয় কেজি গোবর, ৫০০ গ্রাম খৈল, ১২৫ গ্রাম ইউরিয়া, ২৫০ গ্রাম টিএসপি, ১০০ গ্রাম এমপি, ১০০ গ্রাম জিপসাম, ১০ গ্রাম জিংক এবং ৫ গ্রাম বরিক এসিড প্রয়োগ করে মাটি দিয়ে ঢেকে রাখতে হয়। ১৫ দিন পর প্রতিটি গর্তে নির্ধারিত জাতের সতেজ চারা রোপণ করতে হবে।

পরিচর্যা


কলা চাষে তেমন পরিশ্রম না থাকলেও ভালো ফলনের জন্য শ্রম দিতে হবে। গাছ রোপণের পর পরিচর্যায় অবশ্যই আন্তরিক হতে হবে। তাহলে যথাসময়ে অধিক ফল সংগ্রহ করা যাবে। শুকনো মৌসুমে গাছ রোপণ করলে ১৫ থেকে ২০ দিন পরপর সেচ দিতে হবে। আর বর্ষাকালে রোপণ করলে পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা করতে হবে। কলাগাছে প্রচুর পানির প্রয়োজন। তবে অতিরিক্ত পানি সহ্য করতে পারে না। তাই নিষ্কাশনের জন্য নালা কেটে রাখতে হবে। গাছ বৃদ্ধির প্রাথমিক অবস্থায় বিশেষ করে রোপণের প্রথম চার মাস কলা বাগান অবশ্যই আগাছামুক্ত রাখতে হবে। কলার পুরোনো পাতা পরিষ্কার করতে হবে।

ফসল সংগ্রহ


রোপণের পর ১১ থেকে ১৫ মাসের মধ্যেই সাধারণত সব জাতের কলা পরিপক্ব হয়ে ওঠে। গাছের কুঁড়ি থেকে পরিপক্ব কলা কেটে সাবধানে নামাতে হবে। কলার থোড় সুন্দরভাবে পরিষ্কার করে চটের বস্তা বিছিয়ে এর ওপরে রেখে দিতে হবে। থোড় কেটে নেওয়ার পর গাছের মাঝ বরাবর কেটে ফেলতে হবে। সেখান থেকে আবার নতুন চারা গজাবে।


Credit: Source link