ঢাকামঙ্গলবার , ৪ মে ২০২১
  • অন্যান্য

কবুতর পালন ও খাদ্য ব্যবস্থাপনায় করণীয়

admin
মে ৪, ২০২১ ৮:১৩ পূর্বাহ্ন । ১৪২ জন
Link Copied!
agrilive24.com অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি


কবুতর পালন ও খাদ্য ব্যবস্থাপনায় করণীয় কি কি কাজ রয়েছে সেগুলো কবুতর পালনকারীদের ভালোভাবে জানতে হবে। আমাদের দেশের কেউ কেউ বাণিজ্যিকভাবে আবার কেউ কেউ শখের বসে কবুতর পালন করে থাকেন। অনেক বেকার যুবক কবুতর পালনের মাধ্যমে স্বাবলম্বী হয়েছেন। চলুন তাহলে আজ আমরা জেনে জানবো কবুতর পালন ও খাদ্য ব্যবস্থাপনায় করণীয় সম্পর্কে-

কবুতর পালন ও খাদ্য ব্যবস্থাপনায় করণীয়ঃ


আমাদের দেশের সাধারণত কবুতর মুক্ত কিংবা খাঁচায় উভয় পদ্ধতিতে পালন করা হয়ে থাকে। কাঠ দিয়ে ঘর তৈরি করেও কবুতর পালন করা যায়। এমনকি গ্রামের বাড়ির চালের কোণায় ঝুড়ি বেঁধে দিলে সেখানেও কবুতর বসবাস করে।

কবুতরের বাচ্চাকে খাওয়ানোর জন্য কবুতরের প্রাকৃতিকভাবে দুধ উৎপন্ন হয় যাতে পানি থাকে ৭০%, আমিষ থাকে ১৭.৫%, চর্বি থাকে ১০%, খনিজ পদার্থ থাকে ২.৫%। কবুতরের দৈহিক ওজন সাধারণত ৪০০ থেকে ৫০০ গ্রাম হয়ে থাকে। কবুতরের শরীরের তাপমাত্রা সাধারণত ৩৮.৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস হয়ে থাকে।

জাত নির্বাচনঃ


আমাদের দেশের প্রায় ১০০ টিরও বেশি জাতের কবুতর পালন করা হয়ে থাকে। এছাড়া বর্তমানে কিছু বিদেশি কবুতরও দেখা যায়। জাতগুলো হলো- গোলা, গোলি, ময়ূরপঙ্খী, ফ্যানটেল, টাম্বলার, লোটান, লাহরি, কিং, জ্যাকোবিন, মুকি, সিরাজী, গ্রীবাজ, চন্দন প্রভৃতি।

কবুতরের খাদ্য ব্যবস্থাপনাঃ


কবুতরের খাদ্যে পরিমাণমতো আমিষ, চর্বি, শর্করা, ভিটামিন, খনিজ ইত্যাদি উপাদান রাখা উচিত। একটি কবুতর প্রতিদিন সাধারণত ৩০-৫০ গ্রাম খাবার গ্রহণ করে। শীতকালে প্রতিদিন পানি গ্রহণের পরিমাণ ৩০ থেকে ৬০ মিলিলিটার এবং গ্রীষ্মকালে ৬০ থেকে ১০০ মিলি।

শস্যদানাঃ


কবুতরের প্রধান খাবার শস্যদানা। শস্যদানাগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল গম, ভুট্টা, যব, মটর, খেসারি, সরিষা, চাল, ধান, কলাই ইত্যাদি।

বাণিজ্যিক খাদ্যঃ


কবুতরের বাণিজ্যিক খাবারের সাথে অস্থিচূর্ণ বা চুনাপাথর বা ঝিনুকের গুঁড়া, ভিটামিন বা এমাইনো অ্যাসিড প্রিমিক্স, লবণ ইত্যাদিও মিশ্রিত করা হয়ে থাকে।

কবুতরের রোগ ও চিকিৎসাঃ


সাধারণত কবুতরের যে রোগগুলো হয়ে থাকে সেগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো রাণীক্ষেত ও পক্স। তাছাড়াও কিছু পরজীবীর দ্বারা আক্রান্ত হয়ে থাকে। সেজন্য কবুতরকে সময়মতো টিকা দিতে হবে এবং নিরাপত্তা ব্যবস্থা মেনে চলতে হবে। প্রতিদিন কবুতরকে সুষম খাদ্য দিলে ও পর্যাপ্ত আলো, বাতাসের ব্যবস্থা থাকলে রোগ-ব্যাধি অনেকগুনে কম হয়।


আরও পড়ুনঃ পোলট্রি খামার নির্মাণে যেসব বিষয় আগে বিবেচনা…


পোল্ট্রি প্রতিবেদন / আধুনিক কৃষি খামার

Credit: Source link