ঢাকাবুধবার , ২১ এপ্রিল ২০২১
  • অন্যান্য

করোনাঃ বিক্রি না হওয়ায় ক্ষেতেই নষ্ট হচ্ছে ফুল, লোকসানে দিশেহারা ঝিনাইদহের চাষিরা

admin
এপ্রিল ২১, ২০২১ ৯:২০ পূর্বাহ্ন । ১৭৯ জন
Link Copied!
agrilive24.com অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি




ফাইল ছবি


করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় সংক্রমণ রোধে দেশে চলছে লকডাউন। এর ফলে ঝিনাইদহের ফুল চাষিরা ফুল ক্রয় করতে আসছেনা কোন পাইকার ফলে ফুল বিক্রি না হওয়ায় ক্ষেতেই পচে যাচ্ছে ফুল। এছাড়াও ফুল গবাদিপশুর খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করতেও বাধ্য হচ্ছেন চাষিরা। ফুল বিক্রি করতে না পেরে দির্ঘমেয়াদী লোকসানে দিশেহারা হয়ে পড়ছেন এই অঞ্চলের প্রান্তিক চাষিরা।

জেলা কৃষি অফিস সূত্র জানায়, এবছর ঝিনাইদহের ছয় উপজেলায় ১৭৩ হেক্টর জমিতে ফুলের চাষ হয়েছিল। এরমধ্যে গাঁদা ১১৩ ও রজনী ২৪ হেক্টর, বাকি জমিতে অন্যান্য ফুল চাষ হয়েছে। গেল বছর এ জেলায় চাষ হয়েছিল ২৪৫ হেক্টর। প্রতিবছর সব থেকে বেশি ফুলের চাষ হয় সদর উপজেলার গান্না ও কালীগঞ্জ উপজেলার ত্রিলোচনপুর ইউনিয়নে।

গত বছরে করোনার সময়ে লোকসান কাটিয়ে উঠতে নতুন স্বপ্নে এ বছরও ফুল চাষ করেছিলেন চাষিরা। কিন্তু এবারও করোনার প্রকোপ বেড়ে যাওয়ায় সে স্বপ্ন ভেঙ্গে গেছে চাষিদের। গত বছরের ক্ষতি পুষিয়ে উঠার স্বপ্নে সবেমাত্র ফুল বিক্রি শুরু হয়।কিন্তু এবারো সেই স্বপ্ন দুঃস্বপ্নে পরিণত হয়েছে।

ফুল চাষি হোসেন আলী জানান, লকডাউনে ফুল বিক্রি করতে না পারায় দুই বিঘা গাঁদা ও এক বিঘা জমির রজনীগন্ধা ফুল তুলে ফেলেছেন। বিক্রি করতে না পারায় ফুল ক্ষেতেই নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

কালীগঞ্জ উপজেলা ত্রিলোচনপুর ইউনিয়নের শাহপুর ঘিঘাটি গ্রামের ফুলচাষি আনোয়ার হোসেন জানান, প্রায় ৭০ হাজার টাকা খরচ করে ফুল চাষ করেছিলাম। লকডাউনে সব কিছু বন্ধ। পাইকার আসছেনা। ফলে এখন সেই ফুল গবাদিপশুর খাদ্য হিসেবে ব্যবহার করতে বাধ্য হচ্ছি।

ঝিনাইদহ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিফতরের উপ পরিচালক মো. আজগর আলী জানান, করোনার কারণে দেশে লকডাউন চলছে। রাজধানীতে তেমন ফুলের চাহিদা সবথেকে বেশি থাকে। বর্তমান বিয়ে সহ বিভিন্ন অনুহশঠান বন্ধ থাকায় ফুলের চাহিদাও নেই ফলে ফুল নিয়ে বেশ বিপাকে পড়েছে চাষিরা। আশাকরি খুব তাড়াতাড়ি এই সংকট কেটে যাবে।







Credit: Source link