ঢাকাশনিবার , ২৪ জুলাই ২০২১
  • অন্যান্য

গরু বিক্রিতে লোকসান ৯ লাখ টাকা, সইতে না পেরে মারা গেলেন আসমত

admin
জুলাই ২৪, ২০২১ ১২:৩২ অপরাহ্ন । ৬৮ জন
Link Copied!
agrilive24.com অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি





চলতি বছর করোনার প্রভাবে সারাদেশে শেষ মুহুর্তে পশুর হাট জমলেও গরুর কাঙ্ক্ষিত দাম পাননি খামারিরা। এতে করে লোকসানে পুঁজি হারিয়েছেন অনেক খামারি ও ব্যবসায়ী। প্রায় ৯ লাখ টাকা লোকসানের খবর শুনে স্ট্রোক করে মারা গেছেন চুয়াডাঙ্গার আলিহার নামের এক খামারির বাবা আসমত মালিথাও।

জানা যায়,অনেক আশা আর স্বপ্ন নিয়ে ১৫টি গরু নিয়ে ঢাকার গাবতলীতে কোরবানির পশুর হাটে গিয়েছিলেন চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার বেলগাছি গ্রামের আলিহার হোসেন । করোনার প্রভাবে মন্দায় গরু বিক্রিতে লোকসানে করেছেন ২ লাখ টাকা। পাশাপাশি গরমের ধকল সইতে না পেরে মারা যায় সবচেয়ে বড় গরু।

ব্যবসায় বড় ক্ষতির মুখে পড়ে কাতর হয়ে পড়েন আলিহার। খবরটা শোনার পর থেকে চিন্তিত ছিলেন তাঁর বাবা আসমত মালিথাও (৭০)। একপর্যায়ে তিনি অসুস্থ হয়ে মারা যান। শোকাহত আলিহার বাকি পাঁচটি গরু বিক্রি না করেই ফেরত নিয়ে আসেন বাড়িতে। এখন চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার বেলগাছি গ্রামে তাঁর বাড়িতে চলছে মাতম।

আলিহার বলেন, হঠাৎ গত রোববার গরুটা অসুস্থ হয়ে মারা যায়। বাকি ১৪টি গরুর মধ্যে ৯টিক বাজারে বিক্রি করি এতে লোকসান হয়েছে ৯ লাখ টাকা। এই খবরে বাবা অতিরিক্ত টেবশনে পড়েন। অবশেষে তিনি স্ট্রোক করে মারা যান।

জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা বলেন, এবার ঢাকায় যাঁরা গরু নিয়ে গিয়েছিলেন, তাঁদের কেউ কেউ কাঙ্ক্ষিত দাম পাননি। ফেরত আনা গরুগুলোর চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে পর্যাপ্ত ওষুধ মজুত রাখা হয়েছে। দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বিষয়টির তদারক করতে বলা হয়েছে।

সূত্রঃ প্রথম আলো







Credit: Source link