ঢাকাসোমবার , ২৮ জুন ২০২১
  • অন্যান্য

চৌবাচ্চায় বাগদা চিংড়ি চাষ করার কৌশল

admin
জুন ২৮, ২০২১ ৫:৫৯ পূর্বাহ্ন । ৪৯ জন
Link Copied!
agrilive24.com অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি


চৌবাচ্চায় বাগদা চিংড়ি চাষ করার কৌশল মৎস্য চাষিরা অনেকেই জানেন না।  বর্তমানে প্রাকৃতিক উৎসে মাছের উৎপাদন কমে যাওয়ায় দিন দিন পুকুরে মাছ চাষ বৃদ্ধি পাচ্ছে। অনেকেই আবার চৌবাচ্চায় মাছ চাষ করছেন। আজকের এ লেখায় আমরা জেনে নিব চৌবাচ্চায় বাগদা চিংড়ি চাষ করার কৌশল সম্পর্কে-

চৌবাচ্চায় বাগদা চিংড়ি চাষ করার কৌশলঃ


১।  বাড়িতে চৌবাচ্চায় বাগদা চিংড়ি চাষ করার ক্ষেত্রে আপনাকে প্রথমে বাগদা চিংড়ির পোনাকে পলিব্যাগ সহ কিছুক্ষণ চৌবাচ্চার পানিতে চুবিয়ে রাখতে হবে ।

২। এরপর ব্যাগের পানি ও পাত্রের পানির তাপমাত্রা একই মাত্রায় আনতে হবে । তারপর ব্যাগের মুখ খুলে পাত্রের পানি অল্প অল্প করে ব্যাগে দিতে হবে এবং ব্যাগের পানি অল্প অল্প করে পাত্রে ফেলতে হবে ।

৩। ৪০-৫০ মিনিট সময় ধরে এরূপভাবে পোনাকে পাত্রের পানির সঙ্গে খাপ খাওয়াতে হবে ।

খাদ্য প্রয়োগঃ


১।  বাগদা চিংড়ি চাষে আপনাকে নিয়মিত উপযুক্ত খাবার প্রয়োগ করতে হবে। উপযুক্ত সুযোগ বা পরিবেশে খাদ্য ব্যবহার না হলে তা বাগদা চিংড়ির জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর।

২। মাছ স্বাভাবিকভাবে প্রাকৃতিক খাদ্য হিসেবে শেওলা খেয়ে থাকে। তবে আপনি শামুক, ঝিনুক, কেঁচো, স্কুইড, কাঁকড়া,  মাংস, ইত্যাদি দিতে পারেন।

৩। এছাড়াও চাল, ডাল, গম, ভূট্টা ইত্যাদি দানাদার উদ্ভিজ্জ খাদ্য চিংড়িকে দেয়া যায়।

রোগ বালাই ও তাঁর প্রতিকারঃ


১।  বাগদা চিংড়ির বেশকিছু রোগ বালাই হয়ে থাকে। মনে রাখবেন চিংড়ির জীবন চক্রে এক বা একাধিক অস্বাভাবিক অবস্থা যা চিংড়ির স্বাভাবিক বৃদ্ধিকে ব্যাহত করে বা অবস্থাভেদে চিংড়ি মারা যায়।

২। এছাড়াও চিংড়ি চাষে ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া, ছত্রাক, পরজীবী, ইত্যাদি দ্বারা আক্রমণ হতে পারে। তাই নিয়মিত যত্ন নিতে হবে।

বাগদা চিংড়ি যত্নঃ


১। বাড়িতে চৌবাচ্চায় বাগদা চিংড়ি চাষ করতে হলে অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে চৌবাচ্চাটির তলদেশ সার্বক্ষণিক পরিস্কার রাখতে হবে।

২। অন্যান্য জলজ প্রাণী নিয়ন্ত্রিত হতে হবে। অসুস্থ চিংড়ি খাদ্য গ্রহন করে না। তাই অসুস্থ চিংড়িকে আলাদা করতে হবে।

৩। নিয়মিত পানিতে তাপমাত্রা ঠিক রাখতে হবে। প্রয়োজনে পানি বদল করে দিতে হবে।


আরও পড়ুনঃ কার্প মাছের রেণু চাষে কতদিন পর পর…


লেখাঃ শাহিন মিয়া


মৎস্য প্রতিবেদন / আধুনিক কৃষি খামার

Credit: Source link