ঢাকারবিবার , ১৫ অগাস্ট ২০২১
  • অন্যান্য

তিতির পালনের পদ্ধতি ও রোগ বালাই দমন ব্যবস্থাপনা

admin
অগাস্ট ১৫, ২০২১ ৪:৩৩ পূর্বাহ্ন । ৩৯ জন
Link Copied!
agrilive24.com অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি


তিতির নামটির সঙ্গে অনেকেই পরিচিত। পৃথিবীতে পোল্ট্রির যে ১১টি জাত আছে তাঁর মধ্যে তিতির একটি জাত। এটি আমাদের গ্রামবাংলায় চাইনীজ মুরগী নামেও পরিচিত ।

তিতির বর্তমানে বিলুপ্তির পথে । এটি সাধারণত সৌখিন লোকেরাই চাষ করে থাকে । তবে বর্তমানে এটি বানিজ্যিকভাবে পালন করা শুরু হয়েছে। এটিকে হাঁস মুরগীর সাথে একত্রে পালন করা যায়। তিতির পালনে অনেকেই বর্তমানে সাবলম্বী হচ্ছে । এই তিতির মুরগী দেখতে অনেক সুন্দর এবং বড় । আপনি ইচ্ছা করলে আপনার বাড়িতে পালন করতে পারেন ।

তিতির পালনে কি ধরণের খাঁচা বা ঘর বাছাই করবেন  

বাড়িতে তিতির পালন করার জন্য আপনাকে প্রথমে উপযুক্ত ঘর তৈরি করতে হবে । এক্ষেত্রে বেশ কিছু পদ্ধতি আছে । এক্ষেত্রে আপনি তিতির ঘর বানানোর জন্য বাঁশ, বেত, টিন, ছন, খড় ইত্যাদি ব্যবহার করতে পারেন । ঘরের বেড়া বাঁশের দরজা বা কাঠের তক্তা দিয়ে তৈরি করতে হবে ।

এছাড়া মাটির দেয়ালও তৈরি করা যাবে । বেড়া বা দেওয়ালে আলো বাতাস চলাচলের জন্য ছিদ্র থাকতে হবে । তিতির খোলামেলা পরিবেশেও পালন করা যায় । কিংবা আপনি অর্ধ আবদ্ধ অবস্থায় পালন করতে পারেন ।

তিতিরের  জাত বাছাই করা  

পৃথিবীতে বর্তমানে তিতিরের ৩টি মাত্র জাত রয়েছে । তাঁর মধ্যে রয়েছে পার্ল ভ্যারাইটি, লেভেনডার ভ্যারাইটি, হোয়াইট ভ্যারাইটি । তবে আমাদের দেশের আবহাওয়ার সাথে মিল রেখে পার্ল ভ্যারাইটি জাতটি পালন করা সহজ ।

তিতির পালন করার সঠিক সময় 

বাড়িতে তিতির পালন করার জন্য তেমন কোন নির্দিষ্ট সময় ধরাবাধা নেই । আপনি ইচ্ছা করলে বছরের যেকোন সময়ে তিতির পালন করতে পারেন । তবে মার্চ মাস থেকে অক্টোবর মাসে তিতির প্রজনন মৌসুম হিসেবে ধরা হয় । এসময় তিতিরের পালন করা উত্তম ।

তিতির পালন ও সঠিক যত্ন 

আমাদের দেশের আবহাওয়ার সাথে মিল রেখে যে পার্ল ভ্যারাইটি জাতটি পালন করা হয় সেটি পালন করা অত্যন্ত সহজ । তিতিরের ডিম দেশী মুরগীর মাধ্যমে ফুটানো যায় ।  যে তিতির পাখি পাওয়া যায় সেটি পার্ল বা ধুসর বর্ণের । তিতির কে মূলত তিন অবস্থায় পালন করা যায় ।

১। মুক্ত অবস্থায়, ২। অর্ধ মুক্ত অবস্থায়, ৩। বন্ধ অবস্থায় । বাড়িতে হাঁস মুরগী এর সাথে তিতির পালন করা যায় ।

তিতির পালনের পদ্ধতি/কৌশল

বাড়িতে তিতির পালন করা অনেক সহজ । তবে এদের পালনে কিছু বিষয় খেয়াল রাখতে হবে । তিতিরের বাচ্চা সাধারণত মুরগীর বাচ্চার চেয়ে একটু বেশি ঠান্ডায় অধিক সংবেদনশীল। তাই তিতিরের বাচ্চাকে প্রথম সপ্তাহে ব্রুডারে একটু বেশী তাপমাত্রায় রাখতে হবে ।

তিতিরের বাচ্চা একটু বড় হলে তিতিরের বাচ্চার জন্য ব্রুডারে  তাপমাত্রা কমিয়ে আনতে হবে। খেয়াল রাখবেন তিতির খুব অলস জাতের পাখি । এরা নিজেদের ডিম খুব বেশী একটা উম দেয় না । কিংবা দেখা যায় যদি উম দেয় তবে দুই একটি বাচ্চা ফুটলে এরা উঠে চলে যায়।

তাই ডিম থেকে বাচ্চা ফুটানোর ব্যপারে বেশ সতর্ক হতে হবে । তিতিরের ডিমের রঙ দেখতে অনেক সুন্দর । এর ডিম হালকা বাদামি থেকে ঘন বাদামি হতে পারে । তিতিরের ডিমের গায়ে অনেক সুন্দর ছোট ছোট দাগ দেখা যায় । তিতিরের ডিম সাধারণত প্রচুর শক্ত হয় ।

খাবারের পরিমাণ ও সঠিক নিয়মে খাবার প্রয়োগ

তিতির সাধারণত দেশী মুরগীর মত পালন করতে হবে । দেশি মুরগীর মত তিতিরের খাবার সাধারণত সহজলভ্য । তিতির পালনে আলাদা কোন সুষম খাবারের প্রয়োজন পড়ে না । বর্তমানে বাজারের ব্রয়লার মুরগি ও পশুখাদ্য মিক্সচারই তাদের সাধারণ খাবার । এছাড়াও তিতির সাধারণত বাইরে ঘুরে ঘুরে তাঁর নিজের খাবার নিজেই সংগ্রহ করে নিতে পারে । এছাড়াও তিতির সাধারণত বেশ কিছু খাবার খেয়ে থাকে । যেমন ফেলে দেওয়া এঁটোভাত, তরকারি, ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা গম, ধান, পোকামাকড়, শাক সবজির ফেলে দেওয়া অংশ, ঘাস, লাতাপাতা, কাঁকর, পাথর কুচি ইত্যাদি তিতির কুড়িয়ে খায় । তবে যদি আবদ্ধ অবস্থায় তিতির পালন করা হয় তাহলে তিতিরকে অবশ্যই নিয়মিত খাবার দিতে হবে । খেয়াল রাখতে হবে তিতিরের খাবার যেন কোন অসুবিধা না হয় । তিতির অবশ্য কুড়িয়ে খেতে পছন্দ করে ।

তিতিরের রোগ বালাই ও তাঁর প্রতিকার 

বাড়িতে তিতির পালন করার ক্ষেত্রে তিতিরের কয়েকটি রোগ বালাই দেখা যায় । তিতিরের মারাত্নক কয়েকটি রোগ উকুন, গোলকৃমি, রক্তআমাশয়, ট্রাইকোমোনিয়াসিস ইত্যাদি । এই সকল রোগের ব্যাপারে অবশ্যই টিকা দিতে হবে । তবে যদি কোন তিতির অসুস্থ্য হয় তাহলে উক্ত তিতিরকে যথাশীঘ্রই অন্যান্য তিতির থেকে সরিয়ে নিতে হবে । অসুস্থ্য তিতিরের সংস্পর্শে থাকলে বাকি সুস্থ তিতিরও আক্রান্ত হতে পারে । আর বেশী সমস্যা হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে । এছাড়াও তিতিরের বাচ্চা ডিম ফুটে বের হলে দেখা যায় এদের পা খোঁড়া হওয়ার প্রবনতা অনেক বেশি থাকে । তাই নিয়মিত যত্ন নিতে হবে । তবে তিতির পালনে আলাদা কোনো ভ্যাকসিন বা ওষুধও দিতে হয় না ।

পাখি ও খাচার যত্ন ও পরিচর্যা

তিতির লালন-পালন পদ্ধতি অনেকটা দেশী মুরগির মতই । তিতিরের ঘরের আশেপাশের ঝোপ-জঙ্গল কেটে পরিষ্কার করতে হবে । এবং তিতিরের ঘরে যেন পরিপূর্ণ আলো বাতাস প্রবেশ করে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে । তিতিরের পায়খানা ঘরের মেঝেতে যেন লেপ্টে না যায় সেজন্য ঘরের মেঝেতে ধানের তুষ, করাতের গুঁড়া ছিটিয়ে দিতে হবে । এছাড়াও যদি তিতিরের পায়খানা জমতে জমতে শক্ত জমাট বেঁধে গেলে বারবার তা উলট-পালট করে দিতে হবে । নিয়মিত তিতিরের ঘর পরিষ্কার করতে হবে । তিতিরের ঘরে যেন স্যাতসেতে না থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে । এবং যদি তিতির আবদ্ধ অবস্থায় পালন করা হয় তবে বেশি যত্ন নিতে হবে ।


তিতিরের মাংস ও ডিমের খাদ্য গুণাগুণ  

তিতিরের মাংস ও ডিমে প্রচুর পরিমাণে খাদ্য গুণাগুণ বিদ্যমান । তিতিরের মাংস সুস্বাদু এবং ডিমের স্বাদ ও পুষ্টিগুন অনেক বেশি । অনেক বড় বড় হোটেল ও রেস্তোরায় এই তিতিরের মাংসের বেশ কদর আছে ।

তিতির পালনের সুবিধা

বাড়িতে তিতির পালনে অনেক সুবিধা আছে। এদের রোগ বালাইয়ের প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বেশী। যা অন্যান্য পাখির নেই। তিতিরের তেমন রোগ বালাই হয় না বললেই চলে।তিতির পালনে খরচ ও ঝুঁকি অনেক কম । এরা পরিবেশের সাথে অনেক সংবেদনশীল । তাই বাড়িতে তিতির পালন করা  খুব সহজ।

সংকলিত



পোলট্রি প্রতিবেদন/আধুনিক কৃষি খামার

Credit: Source link