ঢাকাবুধবার , ১৩ অক্টোবর ২০২১
  • অন্যান্য

পাঙ্গাস মাছ চাষে ভালো মানের খাদ্য প্রয়োগে বিবেচ্য

admin
অক্টোবর ১৩, ২০২১ ৫:৪৯ পূর্বাহ্ন । ১৭২ জন
Link Copied!
agrilive24.com অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি


পাঙ্গাস মাছ চাষে ভালো মানের খাদ্য প্রয়োগে বিবেচ্য যেসব বিষয় রয়েছে সেগুলো মৎস্য চাষিদের ভালোভাবে জেনেই মাছ চাষ করতে হবে। আমাদের দেশের বিভিন্ন প্রাকৃতিক উৎস তথা নদী-নালা, খাল-বিলে আগের দিনে প্রচুর পরিমাণে মাছ পাওয়া যেত। তবে এখন অনেকেই তাদের পুকুরে মাছ চাষ করছেন। আজকের এ লেখায় আমরা জেনে নিব পাঙ্গাস মাছ চাষে ভালো মানের খাদ্য প্রয়োগে বিবেচ্য বিষয়সমূহ সম্পর্কে-

পাঙ্গাস মাছ চাষে ভালো মানের খাদ্য প্রয়োগে বিবেচ্যঃ


১। পুকুরের পানির তাপমাত্রা এবং প্রাকৃতিক খাদ্যের পরিমাণের ওপর নির্ভর করে খাদ্য প্রয়োগের হারও বাড়ানো বা কমানো যেতে পারে। শীতকালে খাদ্য প্রয়োগের হার স্বাভাবিকের চেয়ে অর্ধেক বা তিন ভাগের এক ভাগ কমিয়ে আনতে হবে। প্রচন্ড শীতের সময় তাপমাত্রা বেশি কমে যায় বলে খাদ্য প্রয়োগ বন্ধ রাখতে হবে।

২। পুষ্টিমান বজায় রাখার স্বার্থে মাছের খাদ্যে স্বল্প পরিমাণে হলেও ফিশ মিল বা অন্যান্য প্রাণিজ আমিষ এবং ভিটামিন ও মিনারেল প্রিমিক্স ব্যবহার করতে হবে ।

৩। বাণিজ্যিকভিত্তিতে মাছ চাষের জন্য শুকনা পিলেট জাতীয় খাদ্যই সবচেয়ে উপযোগী। এটি পানিতে অধিকতর স্থিতিশীল, অপচয় কম হয়, প্রয়োগ করা সহজ এবং কম তাপমাত্রায় সংরক্ষণের প্রয়োজন হয় না।

৪। মাঝে মাঝে খাদ্য প্রয়োগস্থল পর্যবেক্ষণ করতে হবে। প্রয়োগের যথেষ্ট সময় পরে খাবার থেকে গেলে বুঝতে হবে খাদ্যের পরিমাণ বেশি হচ্ছে। সেক্ষেত্রে খাদ্যের পরিমাণ কমিয়ে দিতে হবে। অবশিষ্ট না থাকলে আস্তে আস্তে প্রয়োগমাত্রা বাড়াতে হবে।

৫। প্রত্যেক দিন একই সময়ে একই জয়াগায় খাদ্য প্রয়োগে খাদ্যের সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত হবে।

৬। গরমের দিনে পুকুরে পানি কমে তাপমাত্রা বেড়ে গেলে এবং পুকুরে শ্যাওলার স্তর পড়লে খাবার প্রয়োগ কমিয়ে দিতে হবে বা বন্ধ রাখতে হবে।


আরও পড়ুনঃ মাছ চাষে পরজীবী আক্রমণের ক্ষতিকারক দিক


লেখাঃ মাহমুদ


মৎস্য প্রতিবেদন / আধুনিক কৃষি খামার

Credit: Source link