ঢাকাবুধবার , ৭ জুলাই ২০২১
  • অন্যান্য

বাগমারায় কচু চাষে লাভবান হচ্ছেন কৃষকরা

admin
জুলাই ৭, ২০২১ ৩:৫২ পূর্বাহ্ন । ৭৫ জন
Link Copied!
agrilive24.com অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি





বাগমারায় কচু চাষে লাভবান হচ্ছেন স্থানীয় কৃষকরা। রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নেই কৃষকরা কচু চাষ করে লাভবান হচ্ছেন। লতি কচু, স্থানীয় ভাষায় খাবার কচু বা কুঁড়ি কচু এবং মুখি কচু উভয়েরই চাষ করেছেন কৃষকরা। উৎপাদন খরচের তুলনায় কৃষকরা কচু বিক্রি করে অধিক লাভবান হচ্ছে। তবে কচু চাষে পরিশ্রম বেশি হলেও বাজারদর ভাল থাকায় কৃষকরা আর্থিক ভাবে স্বাবলম্বী হচ্ছেন তারা।

উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, চলতি মৌসূমে বাগমারার ১৬টি ইউনিয়ন ও দুই পৌরসভা এলাকায় ২২০ হেক্টর জমিতে মুখি কচু, ১০ হেক্টর জমিতে স্থানীয় ভাষায় খাবার কচু এবং ১ হেক্টর জমিতে লতি কচুর চাষ করা হয়েছে। আগাম উৎপাদন করায় অনেক কৃষক বাজারে বিক্রি করে বেশী দর পাচ্ছেন বলে জানা গেছে। গত প্রায় দশ বছর থেকে বানিজ্যিক ভাবে কচুর চাষ বেড়েছে। অধিক লাভবান হওয়ায় কৃষকরা কচু চাষে আগ্রহী হয়েছেন বলে জানা গেছে।

অন্যান্য সবজি তরকারীর চেয়ে কচুর কদর অনেক বেড়ে যাওয়ায় এর চাষাবাদ বেড়েছে সব গ্রামেই।হামিরকুৎসা ইউনিয়নের রাঁয়াপুর গ্রামের বিশু প্রামানিক জানান, আগাম চাষ করে লতি কচু বাজারে বিক্রি করে তিনি লাভবান হচ্ছেন। প্রায় বিশ বছর ধরে তিনি কচুর চাষ করে আসছেন বলে জানিয়েছেন। একই ইউনিয়নের ডাঙ্গাপাড়া গ্রামের শহিদুল ইসলাম জানান, অধিক লাভের আশায় এ মৌসূমে আগাম কচু চাষ করা হযেছে। আগাম কচু তিনি ক্ষেত থেকে তুলে বাজারে বিক্রি আরম্ভ করেছেন। ৩৫/৪০টাকা কেজি দরে বিক্রি করছেন। তবে লতি কচু ও অন্যান্য কচুর দাম প্রায় একই বলে জানা গেছে। বর্তমান বাজার দর বেশী হওয়ায় কচুতে লাভবান হওয়া যাবে বলে তারা আশা করছেন।

কৃষক নুরুল ইসলাম জানান, ভাল তরকারী হিসেবে কচু বাজারে কিনতে অনেক দাম হওয়ায় নিজের জমিতে লতি কচু চাষ করে বাজার জাত আরম্ভ করেছি। ভাল দাম পাচ্ছেন বলেও জানান তিনি। উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে বানিজ্যিক ভাবে কচুর চাষ বৃদ্ধি পেয়েছে। কচুর বাজার দর বেশী থাকায় তরকারী হিসেবে অন্যের জমি বন্দোবস্ত নিয়েও কৃষকরা কচু চাষ করছেন।







Credit: Source link