ঢাকামঙ্গলবার , ২৭ এপ্রিল ২০২১
  • অন্যান্য

ভাসমান খাঁচায় মাছ চাষে দেলোয়ার হোসেনের সাফল্য

admin
এপ্রিল ২৭, ২০২১ ৮:৫০ পূর্বাহ্ন । ১৭৩ জন
Link Copied!
agrilive24.com অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি





ভাসমান খাঁচায় মাছ চাষে দেলোয়ার হোসেনের সাফল্য এসেছে। তিনি ঢাকার নবাবগঞ্জ উপজেলার বাহ্রা ইউনিয়নের বলমন্তচর গ্রামের বাসিন্দা। নিজ উদ্যোগে ইছামতী নদীতে ভাসমান খাঁচায় মাছের চাষ শুরু করে সফলতা পেয়েছেন তিনি। এখন তার দেখাদেখি অনেকেই আগ্রহী হয়েছেন খাঁচা পদ্ধতিতে মাছ চাষে। এ বিষয়ে তার কাছ থেকে নিচ্ছেন প্রয়োজনীয় পরামর্শ।

জানা যায়, মৎস্য অধিদপ্তরের অধীনে প্রশিক্ষণ নিয়ে শুরু করেন ভাসমান খাঁচায় মাছ। বাড়ির পাশের ইছামতী নদীতে ভাসমান খাঁচা পদ্ধতিতে তেলাপিয়া মাছ চাষ করেন। প্রথম বছরই লাভের আশা দেখে ধীরে ধীরে খাঁচার সংখ্যা বাড়ান তিনি। পর্যায়ক্রমে খাঁচার সংখ্যা বাড়তে থাকে, এতে লাভবানও হতে থাকেন তিনি।

মাছ চাষি দেলোয়ার হোসেন বলেন, প্রাকৃতিক উপায়ে বেড়ে ওঠা এসব মাছের রোগ-বালাই হয় না। তাই কোনো ওষুধ প্রয়োগ করতেও হয় না। খুব অল্প সময়ের মধ্যে বিক্রি করা যায়। পুকুর বা ঘেরে একটি তেলাপিয়া মাছ এক কেজি হতে সময় নেয় ৬-৭ মাস, আর নদীতে খাঁচায় তেলাপিয়া কেজি হয় ৩-৪ মাসে। প্রতি ৩ মাস পর পর মাছ বিক্রিও করা যায়।

উপজেলার মৎস্য কর্মকর্তা প্রিয়াংকা সাহা জানান, মৎস্য চাষি দেলোয়ার একজন পরিশ্রমী মানুষ। তাকে প্রথম বলার পর সে নদীতে খাঁচায় মাছ চাষে আগ্রহ প্রকাশ করেন। এরপর মৎস্য অধিদপ্তরের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ দেওয়া হয়।


আরও পড়ুনঃ খড়ে তৈরি রেণুর আমিষ জাতীয় খাদ্যের উপকারিতা…


মৎস্য প্রতিবেদন / আধুনিক কৃষি খামার







Credit: Source link