ঢাকাশনিবার , ৪ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • অন্যান্য

মাছের চাহিদা অনুযায়ী খাদ্য প্রয়োগ পদ্ধতি

admin
সেপ্টেম্বর ৪, ২০২১ ৫:৩৫ পূর্বাহ্ন । ২০০ জন
Link Copied!
agrilive24.com অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি


মাছের চাহিদা অনুযায়ী খাদ্য প্রয়োগ পদ্ধতি মৎস্য চাষিদের সঠিকভাবে জেনে রাখতে হবে। মাছের দৈহিক চাহিদা অনুযায়ী খাদ্য প্রয়োগ করতে পারলে মাছের বৃদ্ধি স্বাভাবিক হয়ে থাকে। এতে করে মাছ চাষ করে সহজেই লাভবান হওয়া যায়। চলুন আজকে জানবো মাছের চাহিদা অনুযায়ী খাদ্য প্রয়োগ পদ্ধতি সম্পর্কে-

মাছের চাহিদা অনুযায়ী খাদ্য প্রয়োগ পদ্ধতিঃ 


মাছের নির্দিষ্ট দৈহিক ওজন অনুযায়ী দৈনিক বৃদ্ধির একটা নির্দিষ্ট হার আছে যা অধিক খাদ্য প্রয়োগ করলেও সেই নির্দিষ্ট হার অতিক্রম করার কথা নয়। যেমন, একটি নির্দিষ্ট বয়স বা ওজনে একটি মাছের দৈনিক গড় বৃদ্ধি যদি ২ গ্রাম হয় আর সে অবস্থায় দৈনিক ৬ গ্রাম খাদ্য প্রদান করলেও বৃদ্ধি ২ গ্রামের অধিক হবে না অর্থাৎ এক্ষেত্রে দৈনিক সর্বোচ্চ ৪ গ্রাম খাদ্য পেতে পারে।

১০০ গ্রাম ওজনের একটি পাঙ্গাশ মাছের দৈনিক গড় বৃদ্ধির হার বাংলাদেশের পরিবেশ, প্রযুক্তি, মাছের জাত ইত্যাদি বিচার করলে ২.৫ গ্রামের উপরে নয়। আমরা জানি যে FCR (Feed Conversion Rate) অর্থাৎ খাদ্য রূপান্তর হার ২ এর অধিক হলে লাভ করা কঠিন হয়ে পড়ে।

দেশে বর্তমানে উৎপাদিত ও সর্বাধিক প্রচলিত মৎস্য খাদ্যের গুণগত মান ভেদে FCR ১:১.৭ থেকে ১:২। সে হিসাবে বর্তমানে বাংলাদেশে প্রচলিত মানের মাছের খাদ্য ১০০ গ্রাম ওজনের একটি পাঙ্গাশ মাছকে দৈনিক সর্বোচ্চ ৫ গ্রামের বেশি দেয়া যায় না।

সূত্রটি হচ্ছেঃ দৈনিক গড় বৃদ্ধির হার X খাদ্য রূপান্তর হার = খাদ্যের চাহিদা (Average DGR X FCR)= Demand of Food)। এই পদ্ধতিতে খাদ্য প্রয়োগ করলে উপরে উল্লিখিত ১০০ গ্রাম ওজনের ৬০০০ টি পাঙ্গাশের পুকুরে দৈনিক খাদ্যের প্রয়োজন হবে ৫ গ্রাম X ৬০০০ = ৩০ কেজি।

এতে দেখা যায়, দ্বিতীয় পদ্ধতি ব্যবহার করলে খাদ্যের সাশ্রয় হয় ৬ কেজি। এই অতিরিক্ত ৬ কেজি খাদ্য হয়তো পুকুরে পচনের ফলে পানির গুণগত মান নষ্ট হতো অথবা তা মাছ খেলেও দৈহিক বৃদ্ধিতে কোনো কাজে লাগতো না। প্রয়োজনের অতিরিক্ত খাদ্য পরিপাকের পূর্বেই তা মল হিসাবে বের হয়ে যায়।

পানির নিচে এ জাতীয় অপচয় সাধারণ মাছ চাষিদের ক্ষেত্রে বুঝতে পারা একটু কঠিন। অথচ ধীরে ধীরে এ জাতীয় অপচয়ই প্রতি কেজি মাছের উৎপাদন খরচ অনেক বাড়িয়ে দেয়।


আরও পড়ুনঃ বাগেরহাটে মাছে মেশানো হচ্ছে কৃত্রিম রং; হুমকির…


লেখাঃ মোজাম্মেল কবির


মৎস্য প্রতিবেদন / আধুনিক কৃষি খামার

Credit: Source link