ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৬ মে ২০২১
  • অন্যান্য

রংপুরে খরায় ঝরছে হাঁড়িভাঙ্গা আম, চিন্তিত চাষিরা

admin
মে ৬, ২০২১ ৬:৩৫ পূর্বাহ্ন । ১৪৭ জন
Link Copied!
agrilive24.com অনলাইনের সর্বশেষ নিউজ পেতে অনুসরণ করুন আমাদের ফেসবুক পেজটি


ফজলুর রহমান, রংপুরঃ রংপুরের মিঠাপুকুর ও বদরগঞ্জ উপজেলায় অন্যান্য জাতের আমসহ ব্যপকহারে হাঁড়িভাঙ্গা আমের চাষ হয়। এবারে গাছে প্রচুর পরিমাণে আম ধরলেও গত দুদফা কালবৈশাখি ঝড়-বৃষ্টিতে আম ঝড়ে পড়েছে। এছাড়াও বর্তমানে অতিরিক্ত খরায়ও ঝরছে আম । ফলে আম চাষীরা চিন্তিত।

বুধবার (৫ মে) দুপুরে সরেজমিন উপজেলা দুটির বিভিন্ন আম বাগান ঘুরে দেখা যায়, হাঁড়িভাঙ্গা আমের বাগান মালিক ও মৌসুমি ব্যবসায়ীরা আমের পরিচর্যা করতে ব্যস্ত সময় পার করছেন। মিঠাপুকুর ও বদরগঞ্জে এখন যে দিকেই চোখ যায় শুধু হাঁড়িভাঙ্গার বাগান চোখে পড়ে।

মিঠাপুকুর উপজেলার খোড়াগাছা ইউনিয়নের তেকানী গ্রামের আম চাষি আমজাদ হোসেন পাইকার এর সাথে কথা হলে তিনি জানান, এবার গাছে প্রচুর আম ধরলেও সম্প্রতি দুদফা ঝড়-বৃষ্টিতে আম ঝড়ে পড়ছে। এখন প্রচন্ড গরমেও আম ঝড়ে পড়ছে। তাই হাঁড়িভাঙ্গা আম নিয়ে আমার মতো এলাকার চাষীদের দুচিন্তা কাটছে না।

গত বছর করোনাভাইরাসের কারণে চাষিদের লোকসানের মুখে পড়তে হয়েছিল। চলতি মৌসুমেও একই অবস্থায় পড়েছে বাগান মালিকরা। প্রচন্ড দাবদাহ ও গরমে গাছ থেকে ঝরে পড়ছে আম। তবে কৃষি বিভাগ গাছের গোড়া ও গাছে নিয়মিত পানি সেচ দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছে।

আগামী ১৫ জুনের মধ্যে হাটে আসবে হাঁড়িভাঙ্গা আম। প্রতিবছর হাড়িভাঙ্গা আম বিক্রি করে শুধুমাত্র রংপুরের চাষিরা প্রায় ২শ কোটি টাকার ওপর ঘরে তোলে বলে স্থানীয় কৃষি বিভাগ জানায় ।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, রংপুর কৃষি অঞ্চলের পাঁচ জেলায় প্রায় ৬ হাজার ৯শ ৭৯ হেক্টর জমিতে হাঁড়িভাঙ্গাসহ অন্যান্য আম বাগান রয়েছে। এতে গাছের সংখ্যা রয়েছে প্রায় দুই লাখ ৫৭ হাজার। এরমধ্যে শুধুমাত্র রংপুর জেলায় হাঁড়িভাঙ্গা আমের জমি রয়েছে প্রায় ৩ হাজার ৫শ হেক্টর। এবারে শুধুমাত্র হাঁড়িভাঙ্গা আম উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫২ হাজার ১শ ৯৮ মেট্রিক টন।

বদরগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা মো. জোবাইদুর রহমান বলেন, বৈরী আবহাওয়ার কারণে গাছ থেকে আম ঝরে পড়ছে। এবারের আমের ফলন কম। এটাকে বলা হয় অলটারনেট-বিয়ারিং। প্রচন্ড গরমে বোটা ছিঁড়ে আম ঝরে পড়ছে। এজন্য চাষিদের গাছের গোড়ায় সেচ ও পাতায় পানি স্প্রে করার পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের অতিরিক্ত পরিচালক খন্দকার আব্দুল ওয়াহেদ বলেন, করোনা মহামারির কারণে গত বছর হাঁড়িভাঙ্গার তেমন মূল্য পায়নি চাষিরা। তবে এবারে ভালো দাম পাওয়ার আশা করা হচ্ছে।


আরও পড়ুনঃ কুড়িগ্রামের চরাঞ্চলে ভুট্টার বাম্পার ফলন, স্বাবলম্বী কৃষকরা


কৃষি প্রতিবেদন / আধুনিক কৃষি খামার

Credit: Source link